‘ইরানের কাছে যুক্তরাষ্ট্র নরম হচ্ছে’

ইরানকে নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ইসরাইলের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের  সাবেক প্রধান ইয়োসি কোহেন। তার আশঙ্কা, যুক্তরাষ্ট্র ইরানের কাছে নরম হচ্ছে। তবে ইহুদি রাষ্ট্রের সাবেক এই গোয়েন্দা প্রধান ইসলামিক রিপাবলিক ইরানকে সহজে ছাড় দিতে রাজি নন। এ খবর জানিয়েছে ইসরাইলি সংবাদমাধ্যম জেরুজালেম পোস্ট।

খবরে বলা হয়েছে, গত ১ জুন অবসর নেওয়ার পর হামাসের সাবেক এই প্রধান প্রথম মুখ খুললেন।

যুক্তরাষ্ট্র ইরানের সঙ্গে ২০১৫ সালের পরমাণু চুক্তিতে ফিরবে আশঙ্কা করেই উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন সাবেক মোসাদ।  এছাড়া, ইরাকের ৮টি ঘাঁটির মধ্যে তিনটি ঘাঁটি থেকে সৈন্যসংখ্যা কমিয়ে আনারই ইঙ্গিত দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। এটা নিয়ে সতর্ক বার্তা দিয়েছেন ইয়োসি কোহেন।

ইসরাইলে যুক্তরাষ্ট্রের দাতাদের সঙ্গে এক আলোচনায় তিনি বলেন,  আমরা কি ইরানকে সহজে ছেড়ে দেব? আমরা কি তাদের সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়ে যেতে দেব, আমরা কি দূতাবাসগুলো ধ্বংস হতে দেব?

‘ফ্রেন্ডস অব ইলহানে’ ইসরাইলের আমেরিকান বন্ধুদের কাছে সাবেক মোসাদ প্রশ্ন রাখেন, আমরা কি ইরানকে সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়ে যেত দিব?

ইরানের সঙ্গে পশ্চিমা বিশ্বের কঠোর হওয়া উচিত মন্তব্য করে সাবেক মোসাদ প্রধান বলেন, ইরানকে আমাদের বলা উচিত তাদের কর্মকাণ্ড গ্রহণযোগ্য নয়। আমাদের -ভূ রাজনৈতিক কৌশলের এটা হলো কেন্দ্রীয় ট্রেন্ড।

সাম্প্রতিক সময়ে হামাসের সঙ্গে ইসরাইলের যুদ্ধে ইরান ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ আন্দোলনকে রকেট সরবরাহ করেছে মন্তব্য করে সাবেক মোসাদ প্রধান বলেন, যুক্তরাষ্ট্র ইরাক ত্যাগ করলে ইরান ওই এলাকা দখল করে নেবে। যারাই ইসরাইলের বিপক্ষে ইরান তাদের তাদেরকে সমর্থন দেয় বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

লেবাননের হিযবুল্লাহ এবং ফিলিস্তিনের হামাসকে ইরান অত্যাধুনিক (অ্যাডভ্যান্সড) এবং দামি অস্ত্র সরবরাহ করছে উল্লেখ করে ইয়োসি কোহেন বলেন, ইসরাইলের অভ্যন্তরীণ ফ্রন্টে এটা নতুন ধরনের বিপদ সৃষ্টি করছে। অতীতে এসব সংগঠন এমন অস্ত্র ব্যবহার করেনি।

মন্তব্যর উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন
আপনার নাম লিখুন