ঢাকা ১০:৫৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অ্যাপসে বিকাশ নম্বর নিয়ন্ত্রণ করে টাকা পাচার, গ্রেফতার ৫

বিশেষ রোবোটিক্স অ্যাপসের মাধ্যমে বিকাশের এজেন্ট সিমের নিয়ন্ত্রণ চলে যেত দুবাইয়ে। সেখানে বসেই চলছিল রমরমা হুন্ডি ব্যাবসা। আর এই ডিজিটাল হুন্ডির মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে বিদেশে পাচার হয় শত শত কোটি টাকা। ঢাকা ও

চট্টগ্রামে অভিযান চালিয়ে চক্রের মূলহোতা মামুনসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

বৃহস্পতিবার (২৮ মার্চ) বিকেলে সিআইডি সদর দফতরে আয়োজিত ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান সিআইডি প্রধান মোহাম্মদ আলী মিয়া।

তিনি জানান, মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস ব্যবহার করে গেল তিন মাসে প্রায় ৪০০ কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে একটি চক্র। বুধবার (২৭ মার্চ) রাতে ঢাকা ও চট্টগ্রামে আলাদা অভিযান চালিয়ে এই ডিজিটাল হুন্ডি চক্রের মূলহোতা

শহিদুল ইসলাম মামুনসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে ৬টি মোবাইল, ১৮টি সিম কার্ড, একটি ল্যাপটপ ও ৬টি মডেমসহ সাড়ে ২৮ লাখ টাকা জব্দ করে সিআইডি।

মোহাম্মদ আলী মিয়া জানান, চট্টগ্রামের চাঁদগাঁওয়ের বিকাশ ডিস্ট্রিবিউশন হাউজ তাসমিয়া অ্যাসোসিয়েটের মাধ্যমে ১৫০টি এজেন্ট সিম সংগ্রহ করে চক্রটি। তবে সিমগুলো বাংলাদেশের হলেও একটি বিশেষ রোবোটিক্স অ্যাপসের মাধ্যমে

এসব সিমের নিয়ন্ত্রণ চলে যায় দুবাইয়ে। সেখান থেকেই পরিচালিত হত ডিজিটাল হুন্ডির কার্যক্রম।

বাংলাদেশে এ ধরনের আরও বেশ কয়েকটি অ্যাপস সক্রিয় আছে জানিয়ে সিআইডি প্রধান বলেন, দুস্কৃতিকারীদের আইনের আওতার আনার চেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

অ্যাপসে বিকাশ নম্বর নিয়ন্ত্রণ করে টাকা পাচার, গ্রেফতার ৫

আপডেট সময় : ০৫:৫৭:২১ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৯ মার্চ ২০২৪

বিশেষ রোবোটিক্স অ্যাপসের মাধ্যমে বিকাশের এজেন্ট সিমের নিয়ন্ত্রণ চলে যেত দুবাইয়ে। সেখানে বসেই চলছিল রমরমা হুন্ডি ব্যাবসা। আর এই ডিজিটাল হুন্ডির মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে বিদেশে পাচার হয় শত শত কোটি টাকা। ঢাকা ও

চট্টগ্রামে অভিযান চালিয়ে চক্রের মূলহোতা মামুনসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

বৃহস্পতিবার (২৮ মার্চ) বিকেলে সিআইডি সদর দফতরে আয়োজিত ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান সিআইডি প্রধান মোহাম্মদ আলী মিয়া।

তিনি জানান, মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস ব্যবহার করে গেল তিন মাসে প্রায় ৪০০ কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে একটি চক্র। বুধবার (২৭ মার্চ) রাতে ঢাকা ও চট্টগ্রামে আলাদা অভিযান চালিয়ে এই ডিজিটাল হুন্ডি চক্রের মূলহোতা

শহিদুল ইসলাম মামুনসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে ৬টি মোবাইল, ১৮টি সিম কার্ড, একটি ল্যাপটপ ও ৬টি মডেমসহ সাড়ে ২৮ লাখ টাকা জব্দ করে সিআইডি।

মোহাম্মদ আলী মিয়া জানান, চট্টগ্রামের চাঁদগাঁওয়ের বিকাশ ডিস্ট্রিবিউশন হাউজ তাসমিয়া অ্যাসোসিয়েটের মাধ্যমে ১৫০টি এজেন্ট সিম সংগ্রহ করে চক্রটি। তবে সিমগুলো বাংলাদেশের হলেও একটি বিশেষ রোবোটিক্স অ্যাপসের মাধ্যমে

এসব সিমের নিয়ন্ত্রণ চলে যায় দুবাইয়ে। সেখান থেকেই পরিচালিত হত ডিজিটাল হুন্ডির কার্যক্রম।

বাংলাদেশে এ ধরনের আরও বেশ কয়েকটি অ্যাপস সক্রিয় আছে জানিয়ে সিআইডি প্রধান বলেন, দুস্কৃতিকারীদের আইনের আওতার আনার চেষ্টা অব্যাহত থাকবে।