ঢাকা ১০:২৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সদরঘাটে শেষ সময়ে ভিড়

রাজধানীর সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে চাঁদপুর ও বরিশালগামী যাত্রীদের ভিড়।

পাল্টে গেছে দেশের সবচেয়ে ব্যস্ত লঞ্চঘাট সদরঘাটের চিত্র। ঈদের সময় সদরঘাট থেকে অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে চাঁদপুর, বরিশাল, ভোলা, ঝালকাঠি, পটুয়াখালী ও বরগুনার লঞ্চ ছাড়ত। কিন্তু এ বছর চিত্র ভিন্ন। সবধরনের প্রস্তুতি থাকলেও লঞ্চে যাত্রী সংখ্যা কম। তবে স্বাভাবিক সময়ের মতো যাত্রী নিয়ে চাঁদপুরের উদ্দেশে আধাঘণ্টা পরপর লঞ্চ ঘাটে ভিড়ছে। ঈদ উপলক্ষে এই রুটে ২৪টি বিলাসবহুল লঞ্চ চলাচল করছে।

আজ সোমবার (৮ এপ্রিল) সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে এ চিত্র দেখা যায়। বরিশাল, ভোলা ও চাঁদপুর যাওয়া জন্য ঘাটে দাঁড়িয়ে আছে সারি সারি বিলাসবহুল লঞ্চ। সাইরেন বাজার সঙ্গে সঙ্গে যাত্রী ওঠানোর হাঁকডাক দিচ্ছেন লঞ্চ শ্রমিকরা। ঈদযাত্রা শুরুর পর থেকে আজ যাত্রীর চাপ তুলনামূলক অনেক বেশি।

ঈদুল ফিতরের আনন্দ ভাগাভাগি করতে কর্মব্যস্ত ঢাকা শহর ছেড়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে নাড়ির টানে বাড়ি ফিরছে রাজধানীবাসী। সড়ক, রেল, আকাশ ও জলপথে নিজ নিজ গন্তব্যে ছুটছেন তারা। তবে গত দুই বছরের তুলনায় ঢাকার সদরঘাটে এবারের বাড়ি ফেরার চিত্র একটু ভিন্ন। কেননা পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর থেকে বরিশাল অঞ্চলগামী লঞ্চগুলোতে যাত্রী কমায় সদরঘাটের চেনা রূপ অনেকটাই হারিয়েছিল। তবে ঈদের ছুটির সঙ্গে ফিরেছে চেনা সেই ভিড়।

সদরঘাটে লঞ্চ শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পদ্মা সেতুর প্রভাব না থাকায় চাঁদপুর রুটে শিডিউল অনুযায়ী চলছে লঞ্চ। ভোলা অঞ্চলের লঞ্চগুলোতে দুপুর থেকে ভিড় করেছে যাত্রীরা। সকাল থেকে ভোলার বিভিন্ন রুটে বেশ কয়েকটি লঞ্চ ছেড়ে গেছে। সন্ধ্যার পর থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত বাকি লঞ্চগুলো ছেড়ে যাবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ঈদযাত্রার শুরুর পর থেকে এত ভিড় হয়নি। আজ ছুটির দিন হওয়ায় মানুষের ভিড় বেড়েছে। আগামী দুদিন যাত্রীর চাপ আরো বাড়বে। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার যাত্রী বেশি লঞ্চে।

ঢাকা-বরিশাল রুটে এমভি সুরভী-৯ লঞ্চের স্টাফ আমিরুল ইসলাম জানান, পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর থেকে আমাদের যাত্রীর সংখ্যা একেবারেই কমে গেছে। তবে এবার ঈদ উপলক্ষে যাত্রী বেশ বেড়েছে। বেশিরভাগ কেবিনগুলো থেকেই বুকিং দেওয়ায় কোনো কেবিনই খালি যাচ্ছে না। তবে ডেকে গাদাগাদি অবস্থাটা নেই।

যাত্রীর চাপ বাড়ায় কেবিনগুলোর ভাড়া স্বাভাবিকের চেয়ে কিছুটা বাড়ানো হয়েছে বলে জানান যাত্রীরা। তবে বরিশালগামী লঞ্চগুলোর ভাড়া স্বাভাবিক থাকলেও ভোলাগামী লঞ্চগুলোর ভাড়া স্বাভাবিকের চেয়ে কিছুটা বেশি নেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেন একাধিক যাত্রী।

পটুয়াখালীর যাত্রী রাসেল শিকদার বলেন, ঘাটে অনেকটা সময় আগেই এসেছি কেবিন বুকিং দিতে। ভাড়া সামান্য বেশি দিয়ে কেবিন পেয়েছি। অবশ্য ঈদের সময়, ভাড়া তো একটু বেশি নেবেই। পরিবারের সবার সঙ্গে ঈদ করব- এই আনন্দটাই অনেক। যাত্রায় কোনো ভোগান্তি পোহাতে হবে না বলে আশা করছি।

এদিকে ঈদযাত্রা নিরাপদ করতে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে যাত্রীদের নিরাপত্তায় নৌ-লিশ, বিআইডব্লিউটিএ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা কাজ করছেন।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহণ কর্তৃপক্ষের যুগ্ম পরিচালক মুহাম্মদ ইসমাইল হোসন বলেন, এবার ঈদে নৌপথে যাবে আনুমানিক ২২ লাখ ৫০ হাজার মানুষ। ১০ এপ্রিল থেকে সরকারি ছুটি শুরু হবে। তবে ঘরমুখী মানুষের স্রোত কার্যত শুরু হবে ৮ এপ্রিল থেকে। ওইদিন থেকে ঈদ স্পেশাল লঞ্চ সার্ভিস চলাচল করবে। ঈদের আগের দুদিনসহ সাত দিনে সাড়ে ২২ লাখ মানুষ নৌপথে ঢাকা ছাড়ছে। এই হিসেবে প্রতিদিন ৩ লাখের বেশি যাত্রী সদরঘাট টার্মিনাল হয়ে গন্তব্যে যাবে বলে আশা করা যায়। নৌযানের কোনো স্বল্পতা নেই, সোমবার ঢাকা থেকে বিভিন্ন গন্তব্যের উদ্দেশে লঞ্চ ছেড়ে গেছে সারা দিনে ৫৮টি, রাতে আরও বেশ কিছু লঞ্চ ছাড়বে। আমরা গড়ে প্রতিদিন ১০০টি লঞ্চ প্লাটুনে রেডি রাখছি।

সদরঘাটে শেষ সময়ে ভিড়

আপডেট সময় : ১২:৩৩:৩২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ এপ্রিল ২০২৪

পাল্টে গেছে দেশের সবচেয়ে ব্যস্ত লঞ্চঘাট সদরঘাটের চিত্র। ঈদের সময় সদরঘাট থেকে অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে চাঁদপুর, বরিশাল, ভোলা, ঝালকাঠি, পটুয়াখালী ও বরগুনার লঞ্চ ছাড়ত। কিন্তু এ বছর চিত্র ভিন্ন। সবধরনের প্রস্তুতি থাকলেও লঞ্চে যাত্রী সংখ্যা কম। তবে স্বাভাবিক সময়ের মতো যাত্রী নিয়ে চাঁদপুরের উদ্দেশে আধাঘণ্টা পরপর লঞ্চ ঘাটে ভিড়ছে। ঈদ উপলক্ষে এই রুটে ২৪টি বিলাসবহুল লঞ্চ চলাচল করছে।

আজ সোমবার (৮ এপ্রিল) সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে এ চিত্র দেখা যায়। বরিশাল, ভোলা ও চাঁদপুর যাওয়া জন্য ঘাটে দাঁড়িয়ে আছে সারি সারি বিলাসবহুল লঞ্চ। সাইরেন বাজার সঙ্গে সঙ্গে যাত্রী ওঠানোর হাঁকডাক দিচ্ছেন লঞ্চ শ্রমিকরা। ঈদযাত্রা শুরুর পর থেকে আজ যাত্রীর চাপ তুলনামূলক অনেক বেশি।

ঈদুল ফিতরের আনন্দ ভাগাভাগি করতে কর্মব্যস্ত ঢাকা শহর ছেড়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে নাড়ির টানে বাড়ি ফিরছে রাজধানীবাসী। সড়ক, রেল, আকাশ ও জলপথে নিজ নিজ গন্তব্যে ছুটছেন তারা। তবে গত দুই বছরের তুলনায় ঢাকার সদরঘাটে এবারের বাড়ি ফেরার চিত্র একটু ভিন্ন। কেননা পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর থেকে বরিশাল অঞ্চলগামী লঞ্চগুলোতে যাত্রী কমায় সদরঘাটের চেনা রূপ অনেকটাই হারিয়েছিল। তবে ঈদের ছুটির সঙ্গে ফিরেছে চেনা সেই ভিড়।

সদরঘাটে লঞ্চ শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পদ্মা সেতুর প্রভাব না থাকায় চাঁদপুর রুটে শিডিউল অনুযায়ী চলছে লঞ্চ। ভোলা অঞ্চলের লঞ্চগুলোতে দুপুর থেকে ভিড় করেছে যাত্রীরা। সকাল থেকে ভোলার বিভিন্ন রুটে বেশ কয়েকটি লঞ্চ ছেড়ে গেছে। সন্ধ্যার পর থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত বাকি লঞ্চগুলো ছেড়ে যাবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ঈদযাত্রার শুরুর পর থেকে এত ভিড় হয়নি। আজ ছুটির দিন হওয়ায় মানুষের ভিড় বেড়েছে। আগামী দুদিন যাত্রীর চাপ আরো বাড়বে। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার যাত্রী বেশি লঞ্চে।

ঢাকা-বরিশাল রুটে এমভি সুরভী-৯ লঞ্চের স্টাফ আমিরুল ইসলাম জানান, পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর থেকে আমাদের যাত্রীর সংখ্যা একেবারেই কমে গেছে। তবে এবার ঈদ উপলক্ষে যাত্রী বেশ বেড়েছে। বেশিরভাগ কেবিনগুলো থেকেই বুকিং দেওয়ায় কোনো কেবিনই খালি যাচ্ছে না। তবে ডেকে গাদাগাদি অবস্থাটা নেই।

যাত্রীর চাপ বাড়ায় কেবিনগুলোর ভাড়া স্বাভাবিকের চেয়ে কিছুটা বাড়ানো হয়েছে বলে জানান যাত্রীরা। তবে বরিশালগামী লঞ্চগুলোর ভাড়া স্বাভাবিক থাকলেও ভোলাগামী লঞ্চগুলোর ভাড়া স্বাভাবিকের চেয়ে কিছুটা বেশি নেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেন একাধিক যাত্রী।

পটুয়াখালীর যাত্রী রাসেল শিকদার বলেন, ঘাটে অনেকটা সময় আগেই এসেছি কেবিন বুকিং দিতে। ভাড়া সামান্য বেশি দিয়ে কেবিন পেয়েছি। অবশ্য ঈদের সময়, ভাড়া তো একটু বেশি নেবেই। পরিবারের সবার সঙ্গে ঈদ করব- এই আনন্দটাই অনেক। যাত্রায় কোনো ভোগান্তি পোহাতে হবে না বলে আশা করছি।

এদিকে ঈদযাত্রা নিরাপদ করতে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে যাত্রীদের নিরাপত্তায় নৌ-লিশ, বিআইডব্লিউটিএ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা কাজ করছেন।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহণ কর্তৃপক্ষের যুগ্ম পরিচালক মুহাম্মদ ইসমাইল হোসন বলেন, এবার ঈদে নৌপথে যাবে আনুমানিক ২২ লাখ ৫০ হাজার মানুষ। ১০ এপ্রিল থেকে সরকারি ছুটি শুরু হবে। তবে ঘরমুখী মানুষের স্রোত কার্যত শুরু হবে ৮ এপ্রিল থেকে। ওইদিন থেকে ঈদ স্পেশাল লঞ্চ সার্ভিস চলাচল করবে। ঈদের আগের দুদিনসহ সাত দিনে সাড়ে ২২ লাখ মানুষ নৌপথে ঢাকা ছাড়ছে। এই হিসেবে প্রতিদিন ৩ লাখের বেশি যাত্রী সদরঘাট টার্মিনাল হয়ে গন্তব্যে যাবে বলে আশা করা যায়। নৌযানের কোনো স্বল্পতা নেই, সোমবার ঢাকা থেকে বিভিন্ন গন্তব্যের উদ্দেশে লঞ্চ ছেড়ে গেছে সারা দিনে ৫৮টি, রাতে আরও বেশ কিছু লঞ্চ ছাড়বে। আমরা গড়ে প্রতিদিন ১০০টি লঞ্চ প্লাটুনে রেডি রাখছি।