ঢাকা ০৭:৪৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সেপটিক ট্যাংকে নেমে ৩ শ্রমিকের মৃত্যু

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে সেপটিক ট্যাংকে নেমে ৩ শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। রোববার (১৪ এপ্রিল) দুপুর ১২টায় উপজেলার গুনিয়াউক ইউনিয়নের গুটমাগ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে। সেপটিক ট্যাংক পরিষ্কার করতে তারা সেখানে নেমেছিলেন।

পরে ৩ শ্রমিকের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। প্রাথমিকভাবে নিহতদের মধ্যে একজনের নাম আলম মিয়া বলে জানা গেছে। বাকিদের পরিচয় জানা যায়নি।

 

স্থানীয়রা জানান, গুটমা বাজারের কাছে আহাদ মিয়ার একটি ভবনে কাজ করতেন তারা। রোববার সকালে নির্মাণাধীন একটি বিল্ডিংয়ের সেপটিক ট্যাংকের কাঠের মাচা খুলতে ট্যাংকের ভেতরে প্রবেশ করেন তারা তিনজন। পরে তাদের কোনো সাড়া-শব্দ না পেয়ে স্থানীয়রা দেখতে পান ভেতরে সবাই মারা গেছেন।

এ ব্যাপারে ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার হিমাংশু রঞ্জন সিংহ বলেন, সেপটিক ট্যাংকের ভেতরে বিভিন্ন গ্যাসের কারণে এমন হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন নাসিরনগর থানার ওসি সোহাগ রানা। তিনি বলেন, আমরা ধারণা করছি গ্যাসের কারণে এই মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। তবে এর পেছনে অন্য কোনো কারণ আছে কিনা তা পরবর্তীতে বলা যাবে।

সেপটিক ট্যাংকে নেমে ৩ শ্রমিকের মৃত্যু

আপডেট সময় : ০৪:০১:৩০ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে সেপটিক ট্যাংকে নেমে ৩ শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। রোববার (১৪ এপ্রিল) দুপুর ১২টায় উপজেলার গুনিয়াউক ইউনিয়নের গুটমাগ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে। সেপটিক ট্যাংক পরিষ্কার করতে তারা সেখানে নেমেছিলেন।

পরে ৩ শ্রমিকের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। প্রাথমিকভাবে নিহতদের মধ্যে একজনের নাম আলম মিয়া বলে জানা গেছে। বাকিদের পরিচয় জানা যায়নি।

 

স্থানীয়রা জানান, গুটমা বাজারের কাছে আহাদ মিয়ার একটি ভবনে কাজ করতেন তারা। রোববার সকালে নির্মাণাধীন একটি বিল্ডিংয়ের সেপটিক ট্যাংকের কাঠের মাচা খুলতে ট্যাংকের ভেতরে প্রবেশ করেন তারা তিনজন। পরে তাদের কোনো সাড়া-শব্দ না পেয়ে স্থানীয়রা দেখতে পান ভেতরে সবাই মারা গেছেন।

এ ব্যাপারে ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার হিমাংশু রঞ্জন সিংহ বলেন, সেপটিক ট্যাংকের ভেতরে বিভিন্ন গ্যাসের কারণে এমন হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন নাসিরনগর থানার ওসি সোহাগ রানা। তিনি বলেন, আমরা ধারণা করছি গ্যাসের কারণে এই মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। তবে এর পেছনে অন্য কোনো কারণ আছে কিনা তা পরবর্তীতে বলা যাবে।